1. azadnews77@gmail.com : Azad News : Azad News
  2. kazimasud01723@gmail.com : Kazi Masid : Kazi Masid
  3. live@www.bangladeshbartabd.com : news online : news online
  4. info@www.bangladeshbartabd.com : বাংলাদেশ বার্তা বিডি :
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন

ওয়াজ চলাকালে তাহেরীর গাড়ি ভাঙচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২৪

ওয়াজ মাহফিল চলাকালে নিজের ব্যক্তিগত গাড়ি ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা, এমন অভিযোগ করেছেন ইসলামী বক্তা মুফতি গিয়াস উদ্দিন আত্ব তাহেরী।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার গঙ্গামণ্ডল এলাকায় আয়োজিত ওয়াজ মাহফিলের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

মুফতি গিয়াস উদ্দিন আত্ব তাহেরী ওই মাহফিলের প্রধান বক্তা ছিলেন।

মাহফিল শেষে নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক লাইভে এসে এসব অভিযোগ করেন মাওলানা তাহেরী নিজেই।

এ সময় ৯ মিনিট ধরে গাড়িতে হামলার পুরো বিস্তারিত ঘটনা তুলে ধরেন তিনি।

ভিডিওতে মুফতি গিয়াস উদ্দিন আত্ব তাহেরীকে বলতে শোনা যায়, ২৩ বার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে, কখনোই লাইভে আসেননি। কিন্তু এবার আসতে বাধ্য হয়েছি। কারণ আমার পরের মাহফিলটি ছিল পাবনায়। আমি কুমিল্লার ওই মাহফিলে যখন বলছিলাম আমার পরদিন সকালে মাহফিলটি ছিল পাবনায়, তখন দুর্বৃত্তরা আমি যেন পাবনা না যেতে পারি সেজন্য আমার গাড়িটি ভাঙচুর করেছে।

তিনি বলেন, তারা আমার গাড়িটির যদি গ্লাসগুলো ভেঙে দিতো দুঃখ হতো না, তারা আমার গাড়ির হেডলাইটগুলো ভাঙচুর করে ভেতরের বাল্বগুলো খুলে নিয়ে গেছে। আমি যেন রাতের আঁধারে পাবনা না যেতে পারি, তাই তারা এ কাজ করেছে। আপনারা জানেন প্রিমিও গাড়ির হেডলাইট অনেক ব্যয়বহুল।

মাওলানা তাহেরী বলেন, কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার গঙ্গামন্ডল এলাকায় মাহফিল ছিল। আমি আমার সফরসঙ্গীরাসহ গাড়ির ড্রাইভারকে নিয়ে আয়োজক কমিটির বাড়িতে খাবার খেতে যাই। খাবার খেয়ে আমি সোজা স্টেজে চলে আসি। আমি ওয়াজ শুরুর মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যে এ কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলে দুর্বৃত্তরা। আমার ড্রাইভার গাড়ির কাছে গিয়ে গাড়ির দশা দেখে আমাকে জানায়নি কারণ আমি ওয়াজ করছিলাম।

এ সময় দুর্বৃত্তদের উদ্দেশে তাহেরী বলেন, যুগে যুগে দ্বীনের দাওয়াত দিতে গিয়ে আলেম ওলামারা লাঞ্ছিত হয়েছেন। এটা নতুন ঘটনা নয়। আজকে আমার সঙ্গে যে এ কাণ্ড করেছে আমি আল্লাহর কাছে তাদের হেদায়েতের জন্য দোয়া করি। হে আল্লাহ তুমি তাদের হেদায়াত দাও, যদি হেদায়াত না দাও তবে তাদের ধ্বংস করে দাও।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি এসএম আতিকুল্লাহ জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট